দরপতন থামছে না শেয়ারবাজারে। সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার দরপতনের মধ্য দিয়ে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) লেনদেন শেষ হয়েছে। ফলে পুঁজিবাজারে টানা দুই কার্যদিবস পতন ঘটলো।

এর আগে টানা আট কার্যদিসব পতনের পর সোমবার কিছুটা উর্ধ্বমুখী হয়েছিল শেয়ারবাজার। তবে এক দিনের ব্যবধানেই তা আবারও নিম্নমুখী হয়ে পড়ে।

বুধবার দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১৬ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ৫৫৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হয়েছে ৬৮৪ কোটি ১৮ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৭০৫ কোটি ৭১ লাখ টাকা। অর্থাৎ লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কমেছে ২১ কোটি ৫৩ লাখ টাকা।

মূল্য সূচক ও লেনদেন কমার সঙ্গে এদিন ডিএসইতে যে পরিমাণ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম বেড়েছে তার থেকে কমেছে প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম। লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ১৪৬টি প্রতিষ্ঠানেরই শেয়ারের দরপতন হয়েছে। অপরদিকে দাম বেড়েছে ১৪৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৭টির দাম।

টাকার অংকে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে এসপিসিএল’র শেয়ার। এদিন কোম্পানির ৩৮ কোটি ৫৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ৩৪ কোটি ৮০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ২১ কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে সাইফ পাওয়ার।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- বিডিকম, সিটি ব্যাংক, ডেস্কো, ইসলামী ফাইন্যান্স, পিএইচপি প্রথম মিউচ্যুয়াল ফান্ড, বেক্সিমকো ফার্মা এবং প্রাইম ব্যাংক।

অপর শেয়ারবাজার সিএসইতে সিএসসিএক্স সূচক ১৮ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৪৪৫ পয়েন্টে। বাজারে ৫৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। লেনদেন হওয়া ২৩৩টি ইস্যুর মধ্যে দাম বেড়েছে ১০২টির, কমেছে ১০৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টির দাম।