প্রথমদিনেই বাহুবলির বিজয়রথ থামিয়ে দিল শচীন : আ বিলিয়ন ড্রিমস

পাঁচটি ভাষায় মুক্তি পেয়েছিল শচীন : আ বিলিয়ন ড্রিমস। প্রথম দিনেই গ্যালারির বাইরে বল। শচীন আবেগে ভাসল আসমুদ্রহিমাচল। বক্সঅফিসে রেকর্ড গড়ে ঘরে আনল ৮ কোটি ৪০ লাখ। ক্রিকেট থেকে যে তিনি অবসর নিয়েছেন, সেই ঘোর এখনও কাটেনি অনুরাগীদের। এবার দেশের প্রেক্ষাগৃহ হয়ে উঠল যেন স্টেডিয়াম। কখনও লর্ডস, তো কখনও মেলবোর্ন। কখনও ইডেন বা কখনও ওয়াংখেড়ে। সঙ্গে উপরি পাওনা অনেক অজানা-অদেখা ব্যক্তিগত শচীন মোমেন্টস। সেটাই ম্যাজিকের মতো কাজ করে গেল পর্দায়। এলেন শচীন। অবশেষে গত একমাসের রেশ কাটল বাহুবলির।

প্রতিভা ও পরিশ্রমের মিশেলে নিজেকে ঘষেছেন বারবার। ভেঙেছেন, ফের গড়েছেন। দিনের শেষে তাঁর সাধনায় হার মেনেছে ক্রিকেটবিশ্ব। শচীনকে ঘিরে তৈরি হয়েছে এক অদ্ভুত মায়াজাল। সেই মায়ার জগত এখনও কাটেনি। তিনি এখনও মাঠে আসলেই গ্যালারি গর্জন করে ওঠে। আজও ক্রিকেট ব্যাট নিয়ে তিনি নামেন, স্বপ্ন দেখেন অনুরাগীরা। এই ঘোর না কাটতেই শচীনের বায়োপিক। বায়োপিক সে-অর্থে বলা বোধ হয় ঠিক নয়, বলা হচ্ছে ডকুমেন্টরি-ড্রামা। যেখানে শচীনের সত্যিকারের জীবনকেই ক্যামেরাবন্দি করা হয়েছে। আর তা দেখতেই নস্টালজিক হয়ে পড়ছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। এর আগে মোহম্মদ আলি, আর্টন সেন্যা, আর্নল্ড সোয়ার্জেনেগার ও মাইকেল জর্ডন তাঁদের নিজেদের ডকুমেন্টরিতে অভিনয় করেছেন। মাত্র কয়েকদিন আগে মুক্তি পেয়েছে উসাইন বোল্টের বায়োপিকও। এরপরের তালিকায় উঠে আসলেন শচীন।

গত ২৮ এপ্রিল ভারতজুড়ে মুক্তি পেয়েছিল বাহুবলি-দা কনক্লিউশন। প্রথম পর্বের রেশ এতটাই ছিল, যে দ্বিতীয় পর্বেও সেই দাপট নিয়েই প্রেক্ষাগৃহে চলেছে বাহুবলি। এস রাজামৌলির এই ছবি ফের ভারতীয় ছবির ইতিহাসে গড়ল অনেক রেকর্ড। অবশেষে বাহুবলির সেই রেশ কাটতে চলেছে। পর্দায় শচীন এসেই যেন থামালেন বাহুবলিকে। গতকাল সকালের শো-গুলোতে প্রেক্ষাগৃহে ৪০ শতাংশ টিকিট বিক্রি হয়। যা কাজের দিনের অনুপাতে অনেকটাই বেশি। চলচ্চিত্র বিশেষজ্ঞদের মতে, শচীন আরও অনেক রেকর্ড ভাঙতে চলেছে।