বাংলাদেশের কুড়িগ্রামে মধ্যরাতে বাড়িতে ঢুকে স্থানীয় একজন সাংবাদিককে ধরে নিয়ে গিয়ে জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে।

তবে সুপ্রিম কোর্টের একজন আইনজীবী বলছেন, এভাবে কাউকে বাড়ি থেকে ধরে এনে সাজা দেয়া মোবাইল কোর্টের আওতার মধ্যে পড়ে না।

মাদক বিরোধী টাস্কফোর্সের অভিযানের কথা বলা হলেও শুক্রবার রাতের ওই অভিযানে একমাত্র সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম ছাড়া আর কাউকে আটক করা বা সাজা দেয়া হয়নি।

আরিফুল ইসলামের সহকর্মীরা বলছেন, জেলা প্রশাসক ও প্রশাসনের অনিয়মের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি প্রতিবেদন প্রকাশ করার কারণে প্রতিশোধমূলকভাবে ধরে এনে সাজানো মামলায় সাজা দেয়া হয়েছে।

তবে এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলছেন, জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে সংবাদ করার কারণে প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা হিসাবে এখানে কোন ঘটনা ঘটেনি।

কুড়িগ্রামের কারাগারের সামনে থেকে কথা বলেন সাংবাদিক আরিফুল ইসলামের স্ত্রী মোস্তারিমা সরদার নিতু। তিনি স্বামীর সঙ্গে দেখা করার জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কিন্তু কারাগারের কর্তৃপক্ষ তাকে জানিয়েছে, সাংবাদিক আরিফুল ইসলামের সঙ্গে কারো দেখা না করতে দেয়ার নির্দেশ রয়েছে। তাই তিনি দেখা করার অনুমতি পাননি।

মোস্তারিমা সরদার বলছেন, ”শুক্রবার গভীর রাতে অনেক লোকজন এসে আমাদের বাসার দরজা খুলে দিতে বলে। একপর্যায়ে ওনারা ধাক্কা দিয়ে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে সাত আটজন মিলে আমার স্বামীকে মারতে শুরু করে। তাদের হাতে রাইফেল, পিস্তল সবই ছিল।”

”তখন বারবার বলছিল, কয়দিন ধরে খুব জ্বালাচ্ছিস। গুলি করে দেবো। বলে আর মারে। ওর গায়ে কোন কাপড় ছিল না। আশেপাশের বাড়ির কাউকে সামনে এগোতে দেয়নি। সারা রাস্তা মারতে মারতে নিয়ে গেছে। কোথায় নিয়ে যাচ্ছে, তাও বলেনি।”

অনেকক্ষণ খোঁজাখুঁজির পরে জানা গেল, তাকে নাকি সঙ্গে সঙ্গেই মাদকের মামলায় এক বছরের সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়ে দিয়েছে।