বিনামূল্যে ধান বীজ বিতরণ টুঙ্গিপাড়ায়

আমন মৌসুমে ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বিনামূল্যে ১ হাজার কেজি ধান বীজ বিতরণ করেছে।

গতকাল বিকেলে ব্রি গোপালগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয়ে টুঙ্গিপাড়া উপজেলার ২৫০ জন কৃষকের হাতে ধান বীজ তুলে দেন ব্রি জেলা আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান ড. মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম।

এ সময় ব্রি গোপালগঞ্জ আঞ্চলিক কার্যালয়ের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বিজন চন্দ্র দাস, কৃষি সম্প্রসারণের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা পার্বতী বৈরাগীসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

ড. জাহিদুল বলেন, টুঙ্গিপাড়াসহ গোপালগঞ্জ, নড়াইল ও বাগেরহাট জেলার ৭৫০ জন কৃষককে বিনামূল্যে  আমন মৌসুমের ৩ হাজার কেজি ব্রিধান-৫২,৭৬,৭৭,৭৫,৭১,৮৭, ৯৩,৯৪,৯৫ জাতের ধান বীজ বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, জলমগ্ন এলাকার কৃষক লবন ও বন্যা সহিষ্ণু ব্রিধান-৭৬, ৭৭ ও ৯১ জাত চাষাবাদ করে লাভবান হবে। বন্যায় তার ধানের কোন ক্ষতি হবে না। উপরন্ত অধিক ফলন পাবেন। ব্রিধান-৭১,৭৫ ও ৮৭ স্বল্প জীবনকাল সম্পন্ন। পাট কাটার পর কৃষক এ ধানের আবাদ করতে পারবেন। মাঠ থেকে এ দান কেটে সরিষা চাষ করতে পারবেন। এক জমিতে ৩ ফসল পেয়ে কৃষক লাভবান হবে। ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। দেশ কৃষিতে সমৃদ্ধ হবে। এছাড়া ব্রি হাইব্রিড ধান-৩ ও ৪ প্রচলিত হাইব্রিডের চেয়ে বেশি ফলন দেয়। কৃষক আমন মৌসুমের ব্রিহাইব্রিড ধান মাঠ থেকে কেটে মসুর বা রবি ফসল করতে পারবেন। তারপর আবার বোরো ধান আবাদ করতে পারবেন।

এই কর্মকর্তা আরো বলেন, আমরা কৃষককে নতুন-নতুন ধানের জাতের সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি। সেই সাথে এক ফসলী জমিকে দু’ ফসলী ও দু’ফসলী জমিকে ৩ ফসলী জমিতে পরিনত করতে কৃষককে সব ধরনের সহায়তা দিচ্ছি। এতে অধিক ফসল উৎপাদন করে কৃষক বাড়তি আয় করছেন। এ অঞ্চলে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ জামাল উদ্দিন বলেন,ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) উদ্ভাবিত আমন, আউশ ও বোরো মৌসুমের লেটেস্ট জাতের  ধান বীজ আমাদের মাধ্যমে  টুঙ্গিপাড়া উপজেলার কৃষকদের মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছে। এতে টুঙ্গিপাড়ার কৃষকরা অধিক ফলন পেয়ে লাভবান হচ্ছেন। ধানের পাশাপাশি তারা অন্যান্য ফসলের আবাদ করে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করতে পারছেন।

facebook sharing button
twitter sharing button
messenger sharing button
whatsapp sharing button
sharethis sharing button
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়